1. riyaakhter747@gmail.com : Riya Akther : Riya Akther
কোন জায়গায় গেলে মানসিক শান্তি পাওয়া যায়?
মানসিক শান্তি পাওয়ার উপায়
কোন জায়গায় গেলে মানসিক শান্তি পাওয়া যায়?

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সবাই ভালো আছো আমি আপনাদের মাঝে শেয়ার করব কোন জায়গায় গেলে মানসিক শান্তি পাওয়া যায়? অনেকেই আমাদের কাছে কমেন্টে জানতে চেয়েছেন যে কোথায় গেলে মানুষের শান্তি পাওয়া যায় অথবা কিভাবে মানসিক শান্তি পাওয়া যায় বা কোন জায়গায় গেলে মানসিক শান্তি পাওয়া যায়? আটটায় আজ আমরা আপনাদের মাঝে এই আর্টিকেলটি শেয়ার করছি।

কোন জায়গায় গেলে মানসিক শান্তি পাওয়া যায়?

অনেকেই আছেন যারা গুগলে এই প্রশ্নটি নিয়মিত সার্চ করে থাকেন এবং সার্চ করেছেন। যাই হোক আজ আমরা আপনাদের সাথে এ বিষয় নিয়ে আলোচনা করব। আর প্রতিটি বিষয়ে আমরা আপনাদের মাঝে বিস্তারিতভাবে তুলে ধরার চেষ্টা করব। ঠিক কি কি কারণে মানুষ মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে এবং কোথায় গেলে বা কি করলে মানুষ মানসিক শান্তি অনুভব করে সেই সম্পর্কে বিস্তারিত ধারাবাহিকভাবে তুলে ধরা হবে। যার কারণে আর্টিকেলটি একটু লম্বা হবে তাই কষ্ট করে পুরো আর্টিকেলটি পুরণ।

কোন জায়গায় গেলে মানসিক শান্তি পাওয়া যায়?

মানসিক শান্তির জায়গা খুঁজতে গেলে আগে জানতে হবে ঠিক কি কি কারণে মানুষ মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়ে? মানুষ বিভিন্ন কারণে মূলত ডিপ্রেশনে চলে যায় এর অন্যতম কারণ হলো মানসিকভাবে আঘাত পাওয়া সেটা হতে পারে কর্মক্ষেত্রে অথবা কাছের মানুষের কাছ থেকে। সব থেকে বেশি মানসিকভাবে মানুষ ভেঙে পড়ে তখনই যখন কোন বিশ্বস্ত মানুষ তার বিশ্বাসে আঘাত করে থাকে।

 কোথায় গেলে মানসিক শান্তি পাওয়া যায়?

এবার চলুন জেনে নেওয়া যাক  কোথায় গেলে মানসিক শান্তি পাওয়া যায়। আপনি যদি একজন মুসলমান হয়ে থাকেন এবং আল্লাহকে ভালবাসেন তবে আপনি খুব ভালো করে জানেন আপনাকে শান্তি খুঁজতে হলে কোথায় চলে যেতে হবে। একজন মুসলমানের জন্য শান্তির জায়গা হল নামাজ এবং আপনি যদি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ নিয়মিত পড়ে তবে আপনি সহজে এবং দ্রুতই মানসিক শান্তি অনুভব করতে পারবেন। যারা আল্লাহ তাআলার উপর বিশ্বাস রেখে নিয়মিত পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ে এবং আল্লাহর ইবাদতের মশগুল থাকে তাদের সকল খারাপ চিন্তা মন থেকে দূর হয়ে যায়। তাই  ইসলামিক দিক থেকে মানসিক শান্তি পাওয়া একমাত্র স্থান হল মসজিদ। তাই আপনি যদি আল্লাহকে ভালোবেসেছেন এবং নিয়মিত পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়তে পারেন তবে আপনার জন্য একমাত্র সহজ শান্তির জায়গা হল মসজিদ।

মানসিক শান্তি পাওয়ার উপায়

মানসিক শান্তি পেতে হলে অবশ্যই আপনাকে আপনার মত করে থাকতে হবে এবং নিজেকে নিজের মতো করে চলতে দিন। অর্থাৎ আপনি আগে যেভাবে স্বাভাবিক নিয়মে চলাচল করতেন ঠিক সেভাবে আপনাকে চলতে হবে।

জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক মেখলা সরকার বলেন, নিজেকে আপনি কতটুকু শান্তি দেবেন এটা পুরোপুরি আপনার নিজের উপর নির্ভর করে। 

তাই আমরা যদি সব সময় আমাদের জীবনের গুরুত্বপূর্ণ ইতিবাচক দিকগুলো নিয়ে ভাবতে থাকি। তবে অবশ্যই আমাদের জীবনের সকল সমস্যার সমাধান গুলো আস্তে আস্তে বের হয়ে আসতে থাকবে। কেননা আমাদের জীবনে অনেক কিছু আছে যা আমরা কখনো নিয়ন্ত্রণ করতে পারি না বা পারব না। তাই এগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে অযথা সময় নষ্ট করে কোন লাভ নেই সময়। তাই যেসব বিষয় আপনাকে কষ্ট দেয় সেসব বিষয়ে এখন থেকে এড়িয়ে চলুন। সেই সকল বিষয় কখনোই আপনি আপনার জীবনে গ্রহণ করবেন না অথবা আসতে দিবেন না।

সহজ কাজ দিয়ে শুরু করা

যখন আপনি কোন কাজ করতে যাবেন তখন অবশ্যই সে কাজটি মধ্যে যে কাজটি সবথেকে বেশি সহজ সেটি আগে শুরু করবেন এতে করে আপনার মধ্যে আত্মবিশ্বাস বাড়তে থাকবে। এভাবে প্রথমে সহজ কাজটি করবেন এবং তার থেকে পরবর্তী যেটি একটু কঠিন সেটি করবেন এভাবে ধারাবাহিকভাবে যখন আপনি কঠিন কাজটি করতে যাবেন তখন সেটিও আপনার কাছে সহজ মনে হবে।

আর আপনি যদি শুরুতে কঠিন কাজ করতে যান সে ক্ষেত্রে যদি আপনি না পারেন তবে আপনার মনের আত্মবিশ্বাস থাকবে না এবং আপনি মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়বেন।

অপ্রাপ্তি গুলো গ্রহণ করে নেওয়ার চেষ্টা করুন

আপনার অপ্রাপ্তি গুলো গ্রহণ করার চেষ্টা করুন। যেসব বিষয় এখনো আপনি অপ্রাপ্ত রয়েছেন এবং এসব বিষয়ে আপনি এখনো সাকসেস হতে পারেনি সেগুলো খুজে বের করুন। খুঁজে বের করুন ঠিক কি কি কারণে আপনি এখনো এসব বিষয় সাকসেস হতে পারেননি এবং আপনার দুর্বলতা গুলো ঠিক কি কি। দুর্বলতা গুলোকে খুঁজে বের করার পর সেগুলো সংশোধন করুন এবং নতুন করে আবার চেষ্টা করুন ইনশাল্লাহ আপনি জিতবেন।

সমালোচনায় কান দিবেন না

আমাদের মত মানুষের সবচেয়ে বড় একটি সমস্যা হলো এবং আমাদের সাকসেসের বড় একটি বাধা হলো আমরা মানুষের সমালোচনা  কান দিয়ে চুপচাপ বসে যায় অথবা আমাদের লক্ষ্য থেকে সরে আসে। নাইরে একটা জিনিস খুব ভালোভাবে ভেবে দেখুন আপনি যার কথায় আপনার লক্ষ্য থেকে সরে এসেছেন সে কখনো আপনি না খেয়ে থাকলে একবেলা খাবার দিতে আসবেনা। তাহলে তার কথা কেন আপনি যে লক্ষ্য থেকে সরে যাবেন সে তার মত যদি বলে খুশি থাকে। তবে আপনিও আপনার কাজ করে খুশি থাকো লক্ষ্য থেকে সরার কোন দরকার নেই।

নিজের যত্ন নিতে শিখুন

মানসিকভাবে ভেঙে পড়ার পর অনেকে আছেন যারা স্বাভাবিক ভাবে আসতেছে দুর্বল হয়ে যান এর কারণ হলো নিজের শরীরে যত্ন না নেওয়া। তাই আপনি যদি মানসিকভাবে সুস্থ থাকতে চান তবে অবশ্যই শরীরে যত্ন নিতে শিখুন এবং আপনি যখন শরীর যত্ন নেবেন আর আপনার শরীর যখন ভালো থাকে তখন স্বাভাবিকভাবে আপনার মন ভালো থাকবে। শরীর এবং মনের সাথে কিন্তু একটি সম্পর্ক রয়েছে। আপনার শরীর সুস্থ থাকলে আপনার মন ভালো থাকবে। আর আপনার মন ভালো থাকবে আপনার শরীরও ভালো থাকবে। তাই সবসময় নিজেকে যত্নশীল হতে হবে নিজের প্রতি। 

মানসিক শান্তি পাওয়ার গুরুত্বপূর্ণ কিছু টিপস

একটা জিনিস সবসময় মনে রাখবে মানুষের সময় সব সময় এক যায় না। আপনি যদি কষ্টের সময় পার করেন তবে অবশ্যই আপনার সুখের সময়ও আসবে এটাই দুনিয়ার বাস্তবতা। তাই আপনার জীবনে যদি কখনো কষ্টের সময় চলে আসে তবে অবশ্যই। সেই সময় আপনি আপনার মনকে স্থির করুন এবং মনে শান্তি রাখার পুরোপুরি চেষ্টা করুন। কখনো হার মানবেন না ধৈর্য ধরুন, মনকে স্থির রাখু,ন আর ,সৃষ্টিকর্তার উপর বিশ্বাস রেখে নিজের কাজকে চালিয়ে যেতে থাকুন। দেখবেন খুব দ্রুতই আপনি আপনার লক্ষ্যে পৌঁছে গিয়েছেন।

 আশা করি আর্টিকেলটা আপনাদের ভালো লেগেছে। এই ধরনের আরো নতুন নতুন আর্টিকেল সবার আগে পেতে আমাদের ওয়েব সাইটে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন। আর আপনি যদি ইতিমধ্যে আমাদের ওয়েবসাইটটি সাবস্ক্রাইব করে থাকেন তবে আপনাকে অসংখ্য অসংখ্য ধন্যবাদ। 

আমার বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করব
About The Author
Riya Akther
আমার নাম রিয়া আক্তার। আমি একজন স্টুডেন্ট। মেয়ে পটানোর থেরাপি সম্পন্ন ব্যতিক্রমধর্মী একটি ওয়েবসাইট। আমি মূলত মেয়ে পটানোর থেরাপির ওয়েবসাইটের সকল আর্টিকেল লিখেছি। আমি আমার আর্টিকেলে আপনাদের মাঝে যেসব আইডিয়া শেয়ার করেছি এগুলো মূলত আমার বন্ধু বান্ধব ও বান্ধবীদের ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে নিয়েছি। আমার এই ওয়েবসাইটে কাজ করার উদ্দেশ্য হচ্ছে উদ্দেশ্য হচ্ছে যাতে করে সবাই তার ভালোবাসার মানুষের কাছে তার মনের কথা খুব সহজে জানাতে পারে এবং আমার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আমি যাতে আপনাদের ভালোবাসার মানুষটিকে পেতে আপনাদেরকে সকল ধরনের সাহায্য করতে পারি।