1. riyaakhter747@gmail.com : রিয়া আক্তার : রিয়া আক্তার
মাত্র ১০ মিনিটে মেয়ে পটানোর সহজ উপায়
মেয়ে পটানোর সহজ উপায়
মাত্র ১০ মিনিটে মেয়ে পটানোর সহজ উপায়

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সবাই ভাল আছেন আজ আমি আপনাদের সাথে আলোচনা করব মেয়ে পটানোর উপায়। আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা মেয়ে পটাতে চান কিন্তু কিভাবে মেয়ে পটাতে হয় তা জানেন না। চিন্তা করার কোনো কারণ নেই আজ আমরা আপনাদের কাছে বিভিন্ন মেয়ে পটানোর টিপস এন্ড টিপস নিয়ে আলোচনা করব। পাশাপাশি বেশ কয়েকটি মেয়ে পটানোর উপায় আপনাদের মাঝে শেয়ার করব। যার কারণে আর্টিকেলটি একটু বড় হবে তাই কষ্ট করে সম্পূর্ণ আর্টিকেলপড়ুন।

মাত্র ১০ মিনিটে মেয়ে পটানোর সহজ উপায়

মেয়ে পটানোর অনেকগুলো কৌশল রয়েছে তার মধ্যে থেকে আমি আপাতত আজকে আপনাদের তিনটি জনপ্রিয় কৌশল নিয়ে আলোচনা করব। আশা করি এই তিনটি জনপ্রিয় কৌশল ব্যবহার করে আপনি খুব সহজে আপনার পছন্দের মেয়েকে খুব সহজে পটাতে পারবে। তবে একটা কথা আপনাদের অবশ্যই বলে রাখি আপনি যদি কোন মেয়েকে সত্যি পটাতে চান সেক্ষেত্রে আপনাকে প্রচুর পরিমাণ পরিশ্রম করতে হবে।

 আপনি যখন কোন মেয়েকে পটাতে যাবেন তখন কোন ভাবে ধৈর্য হারালে চলবে না বরং ধৈর্য ধরে চেষ্টা করতে হবে তাহলে দেখবেন আপনার পছন্দের মেয়েটি পটে গিয়েছে। তাহলে চলুন বন্ধুরা আর দেরি না করে শুরু করা যাক।

নম্বর ১ নিজের ট্যালেন্ট দেখান

প্রত্যেকটি মেয়ে ছেলেদের ভিতরে থাকা ট্যালেন্ট কে পছন্দ করে থাকে। সেটা যে ধরনের ট্যালেন্টই হোক না কেন। আর আমরা খুব ভালো করে জানি প্রত্যেকে মানুষের ভিতর কোন না কোন ট্যালেন্ট লুকিয়ে থাকে। অর্থাৎ পৃথিবীর প্রত্যেকটি মানুষ কোন না কোন দিকে এক্সপার্ট অবশ্যই হয়ে থাকে। উদাহরণস্বরূপ কোন মানুষ লেখাপড়ায় ভালো আবার কোন মানুষ গান গাইতে এক্সপার্ট ঠিক এরকমই প্রত্যেকটি মানুষের একদিকে এক্সপার্ট হওয়ার গুন রয়েছে। আর আপনি সেটাই কাজে লাগান। তাই দেরি না করে এখন নিজেকে প্রশ্ন করুন এবং খুঁজে বের করুন আপনি কোন দিকে এক্সপার্ট।

এর মানে হচ্ছে আপনি কোন কাজে সব থেকে বেশি পারদর্শী। এখন আপনার কাজ হচ্ছে আপনি যেখানে সব থেকে বেশি সেই কাজটি মেয়েটির সামনে নিখুত ভাবে তুলে ধরার চেষ্টা করা। 

উদাহরণস্বরূপ ধরুন আপনি ভালো গান গাইতে পারেন। তাহলে কোনদিন সুযোগ বুঝে আপনার এলাকার কোন অনুষ্ঠানে অথবা স্কুল বা কলেজের কোন অনুষ্ঠানে সুন্দর একটি গান গেয়ে দেখুন না। দেখবেন দু একটা মেয়ে আপনার গান শুনে অবশ্যই আপনার প্রতি ইমপ্রেস হবে। আবার আরেকটি উদাহরণ টেনে আনা যায় ধরুন আপনি মানুষকে হাসাতে ভালবাসেন অথবা খুব সহজে আপনি যেকোন মানুষকে হাসাতে পারেন। সে ক্ষেত্রে আপনি চাইলে আপনার ইস্কুলে অথবা কলেজে অথবা অফিসে অবসর সময় বন্ধু-বান্ধবদের সাথে মজার মজার কথা বলে বিভিন্ন সময় জোকস বলে তাদেরকে হাসান। তাছাড়াও বন্ধুদের সাথে মজার মজার কথা বলে আড্ডা জমিয়ে তুলুন।

 এতে করে আপনি খুব সহজে আপনার আশেপাশে মেয়েদের নজর নিজের দিকে আনতে পারবেন। এতে করে অনেক মেয়ে আপনার সাথে কথা বলতে অথবা আপনার সাথে আড্ডা দিতে আগ্রহী হয়ে যাবে। আবার হতে পারে আপনি পড়াশোনায় ভালো পারেন তাহলে নতুন কিছু বলার নেই ক্লাসের সকল মেয়ে তখন আপনার সাথে ফ্রেন্ডশিপ করতে চাইবে। আবার এটা হতে পারে আপনি খুব ভালো মানের উপস্থাপন করতে পারেন অথবা খুব ভালোভাবে ক্লাসের বিভিন্ন ছেলেদের সাথে নিয়ে নেতৃত্ব দিতে পারেন। সে ক্ষেত্রে আপনি চাইলে আপনার স্কুল কলেজে অথবা অফিসে অথবা আপনার কোন পারিবারিক অনুষ্ঠানে উপস্থাপন বা নেতৃত্ব দেওয়া দায়িত্বটা আপনি নিজে থেকে নিয়ে নিন। অথবা আপনার এলাকায় কোন প্রোগ্রামে বা ছোট কারো কোন অনুষ্ঠানের উপস্থাপনের দায়িত্বটা নেওয়ার চেষ্টা করুন।

এরপর খুব সুন্দর করে আপনার প্রতিভা সবার মাঝে ফুটিয়ে তুলন। দেখবেন তুই একটা মেয়ে অবশ্যই আপনার এই প্রতিভা দেখে আপনার প্রতি ইমপ্রেস হয়ে গিয়েছে। এভাবে আপনি চাইলে আপনার যে কোন প্রতিভা মেয়েদেরকে দেখাতে পারেন। মেয়েদের অনেকগুলো পছন্দের প্রতিকার রয়েছে তার মধ্যে বেশ কয়েকটি আপনাদের মাঝে শেয়ার করছি।

  • গিটার বাজানোর প্রতিভা 
  • গান গাওয়ার প্রতিভা
  • ভালো কবিতা আবৃতি করার প্রতিভা 
  • খুব সহজে মানুষকে হাসানোর দক্ষতা

আপনি চাইলে এ ধরনের প্রতিভা ব্যবহার করে যে কোন মেয়েকে খুব সহজে ইমপ্রেস করতে পারেন। বলুন আপনি ভালো গিটার বাজাতে পারেন। আপনি হয়তো বা ভালো কবিতা লিখতে পারেন বা ভালোভাবে কবিতা আবৃতি করতে পারেন ইত্যাদি। এরকম আপনার প্রতিভা অবশ্যই আছে। যেটি আপনি আপনার ভালোবাসার মানুষের সামনে প্রদর্শন করুন। দেখবে মেয়েটি খুব সহজে আপনার ওপর ইমপ্রেস হয়ে গেছে। কেননা মেয়েরা ছেলেদের ট্যালেন্ট সবচেয়ে বেশি পছন্দ করে থাকে।  

আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন অনেকে বলল ভুল হবে বেশিরভাগ মানুষই নিজেদের মধ্যে অনেক প্রতিভা আছে। কিন্তু তা লুকিয়ে রাখেন এবং ভালোবাসার মানুষের কাছে তা প্রকাশ করেন না। তাহলে সেই মেয়েটি কিভাবে আপনার ভিতরে থাকা ট্যালেন্ট কে বুঝতে পারবে এবং আপনাকে ভালবাসবে। আপনি যদি আপনার ট্যালেন্ট ব্যবহার করে দুই একটা মেয়ে পটাতে না পারেন সে ক্ষেত্রে সেই ট্যালেন্ট থেকেই বা কি লাভ হল। তাই বলছি সাহস করে আপনার ট্যালেন্ট কে কাজে লাগান এবং নিজের ভালোবাসার মানুষটিকে এখনই ইমপ্রেস করে ফেলুন।

নম্বর২ আশেপাশে থাকুন

এই টেকনিকটা বিশেষ করে অপরিচিত কোন মেয়ে পটানোর ক্ষেত্রে আপনি চাইলে ব্যবহার করতে পারেন। আশা করি এই টেকনিকটি আপনার জন্য ৯৯% কাজ করবে। এই টেকনিক এর মূল ব্যাপার হচ্ছে আপনি যে মেয়েটিকে পটাতে চাচ্ছেন তার আশেপাশে আপনাকে থাকতে হবে। যখন আপনি প্রায় সময় মেয়েটির আশে পাশে থাকবেন তখন ওই মেয়েটির আপনার প্রতি একটু একটু করে আগ্রহ জন্মাবে। আপনার সাথে কথা বলার জন্য এবং সেই সাথে আমার প্রতি একটি আলাদা জায়গা ও একটু একটু করে বিশ্বাস জন্ম নেবে। বিষয়টি একটি উদাহরণ দিয়ে বুঝালে আপনি খুব সহজে বুঝতে পারবেন।

মনে করুন আপনি একটি বাসে একটি মেয়েকে দেখলেন। নিশ্চয়ই সেটি আপনার কাছে কোন আলাদা কিছু মনে হবে না এবং আপনি অবশ্যই তাকে ভুলে যাবেন। কিন্তু আপনি দ্বিতীয় দিনে যদি দেখেন তবে সেদিন হয়তো আপনি তাকে ভুলে যেতে পারেন। কিন্তু তার সাথে যদি আপনার প্রতিদিন দেখা হয় সে ক্ষেত্রে আপনি নিশ্চয়ই তাকে খুব ভালোভাবে স্মরণে রাখবেন। এবং ধীরে ধীরে আপনার তার প্রতি একটু হলেও কৌতুহল জন্ম নেবে। তার সাথে আপনার পরিচিত হতে ইচ্ছে হবে এবং আস্তে আস্তে তাকে আপনার পরিচিত মনে হবে। ফলে তার উপর আপনার আস্থা এবং বিশ্বাস তৈরি হবে। ঠিক এই টেকনিকে আপনাকে ব্যবহার করতে হবে। 

তাই আপনি যে মেয়েটিকে পছন্দ করেন সব সময় চেষ্টা করুন নিয়মিত তার আশে পাশে থাকে যাতে করে আপনি তার নজরে পড়েন। সেটা যদি প্রতিদিন একই সময় অথবা একই ভাবে হয় সেক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ভালো হবে। এক্ষেত্রে প্রতিদিন একই সময় এবং একই নিয়মে আপনাকে দেখতে দেখতে অভ্যস্ত হয়ে যাবে। এবং প্রতিদিন ঠিক ওই সময় আগে আপনার কথা মনে পড়ে যাবে। এভাবে ধীরে ধীরে আপনার প্রতি একটা ভালো লাগা তৈরি হবে। আশেপাশে আপনার উপর তার একটি আস্থা আসবে। তখন হয়তো একদিন আপনি সুযোগ পেয়ে যাবেন তার সাথে হাই হ্যালো করে নিলেন। আর যেহেতু অলরেডি আপনার কাছে মোটামুটি ইমপ্রেস হয়ে আছে। তাই আশা করা যায় বাকি কাজটুকু আপনি খুব সহজে হ্যান্ডেল করতে পারবেন।

নাম্বার ৩ অন্য কাউকে সাহায্য করুন 

যে ছেলে মানুষের হেল্প করতে পছন্দ করে তাদেরকে মেয়েরা সবচেয়ে বেশি পছন্দ করে। তাই প্রায় সব ছেলেরা মনে করেছে কোন মেয়েকে পটাতে চাইলে সেই মেয়েটিকে কোন হেল্প করতে হবে তাহলে মেয়ে ফুটে যাবে আমি বলব এই টেকনিকটি ৯৫% ক্ষেত্রেই ভুল কাজ করে থাকে। অনেক সময় এরকম কাজ করলে বরং উল্টোটাও হতে পারে কারণ সব ছেলেরা মেয়েদের পটানোর জন্য গায়ে পড়ে হেলথ হেল্প করার চেষ্টা করে। আর এই বিষয়টা সব মেয়েরাই জানে। তাই আপনি যখন গায়ে পড়ে কোন মেয়ের হেল্প করতে যাবেন, তখন মেয়েটি বুঝে নেবে যে আপনি তাকে পটানোর চেষ্টা করতেছেন। তাতে মেয়েটি আর সতর্ক হয়ে যেতে।

অনেক সময় দেখা যাবে, এতে করে মেয়েটি আপনার থেকে গাঁ বাঁচিয়া চলতে চাইবে। তাহলে তো বুঝতেছেন হেল্প করতে এসে আপনি পুরো বাঁশ খেয়ে যাবেন। তাই আপনাকে একটা কাজ করতে হবে। মেয়েটি কে হেল্প না করে বরং মেয়েটির সামনে অন্য কোন মানুষকে হেল্প করতে হবে। তাহলে সেটা দেখে মেয়েটি বুঝতে পারবে আপনি সত্যি মানুষের হেল্প করতে ভালোবাসি। এখন হয়তো আপনি ভাবতে পারেন, কি রকম হেল্প করব? তাহলে চলুন একটি উদাহরণ দিয়ে আপনাকে বোঝানো যাক।

মনে করেন আপনি একটি বাসস্টপে দাঁড়িয়ে আছেন। তাহলে আপনি যে কোন বৃদ্ধকে রাস্তা পার করে হেল্প করতে পারেন। কাউকে বাসে উঠতে বা নামতে হেল্প করতে পারেন। কোন ফকির আপনার কাছে আসলে নাস্তা করাটা পারেন। আপনার কাছে ছোট কোন বাচ্চা আসলে তাকে ডেকে নিয়ে মাথায় হাত বুলিয়ে আদর করে তাকে আইসক্রিম বা চকলেট কিনে দিতে পারেন। অথবা আপনি মনে করেন কোন বাস বা ট্রেন অথবা গাড়িতে ভ্রমণ করতেছেন। আপনি সিটে বসে আছেন অথবা আপনার পাশে কোন ভদ্রলোক বা বয়স্ক লোক দাঁড়িয়ে আছে তাহলে আপনি দাঁড়িয়ে গিয়ে তাকে বসতে দিন। 

এগুলো যে কোন মেয়ে দেখলে আপনার প্রতি খুব সহজে ইমপ্রেস হয়ে যাবে তাতে কোন সন্দেহ নেই। আর এই ট্রিকটা বিভিন্ন মুভিতে অনেক ভাবেই দেখানো হয়েছে। যেমন নায়ক কোন অন্ধকে রাস্তা পার করে দিচ্ছে এটা দেখে নায়কা সাথে সাথে নায়কের প্রেমে পড়ে থাকে। এমন শত শত অনেক ব্যাপার মুভিতে দেখানো হয়েছে। অত্যন্ত কার্যকর বিশ্বাস করুন এবং মেয়ে পটানোর যত কৌশল আছে তার মাঝে সবচেয়ে সেরা এবং সবচেয়ে শর্টকাট কৌশল এটা। তাই আপনি একবার ট্রাই করে দেখতে পারেন আশা করি অবাক করার মত ফলাফল পেয়ে যাবেন।

আশা করি আর্টিকেলটি আপনার কাছে ভালো লেগেছে।  উপরে আমরা নিচে কয়টি টেকনিক শেয়ার করেছি তার মধ্যে কোনটি আপনার কাছে ভালো লেগেছে অবশ্য কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানিয়ে দিন ধন্যবাদ।  

আমার বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করব
About The Author
রিয়া আক্তার
আমি রিয়া আক্তার। মেয়ে পটানোর থেরাপি ওয়েবসাইটের সকল আর্টিকেল আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে লিখেছি। আমি চাই প্রত্যেকটা মানুষ যাতে তার প্রিয়জনের কাছে তার ভালোবাসার কথা বলতে পারে ও প্রিয় জনকে ভালবাসতে পারে।